খুব সহজেই অনলাইন থেকে টাকা ইনকামের উপায়। Easily Earn money from Online


Easily Earn Money From Online
Easily Earn Money From Online

ঘরে বসে খুব সহজেই অনলাইন থেকে ইনকাম সকলেই করতে চাই কিন্তু কয়জন এই বা পারে? আসলে এই না পারার মূল কারন কী??  উওরটা আমিই বলি - না পারার মূল কারণ হলো সঠিক গাইডলাইন এবং ধৈর্য্য।

কেউ পারেনা সঠিক গাইডলাইনের কারণে আবার কারো সঠিক গাইড লাইন আছে কিন্তু ধৈর্য নেই। কিন্তু অনলাইনে সফল হওয়ার জন্য দুটোই খুব জরুরী। এই দুটি ছাড়া কখনো কেউ অনলাইনে সফলতা অর্জন করতে পারবে না।

এ পর্যন্ত যারা অনলাইনে কাজ করে সফলতা অর্জন করেছেন , তাদের বেশিরভাগই ভালো ভালো আর্টিকেল পড়ে ফ্রিল্যান্সিং সম্বন্ধে বা অনলাইনে টাকা উপার্জনের সম্বন্ধে জ্ঞান লাভ করেছেন।

আমাদের মধ্যে অনেকে আছেন---- যারা বিভিন্ন আর্নিং অ্যাপস এ কাজ করে থাকি। যা থেকে দিনে 20 থেকে 100 টাকা উপার্জন করতে পারেন। দিন শেষে দেখা যায় সে আর্নিং অ্যাপস টি আর পেমেন্ট দেয় না।

এখন আপনি বলেন এই 20 থেকে 100 টাকা দিয়ে কি জীবন চলে বা সংসার চালানো যায় ?? যায় না। আমি বলছি না যে এখান থেকে উপার্জন করতে পারবেন না পারবেন কিন্তু খুব কম একসময় দেখা যাবে সেটি আর পেমেন্ট দেয় না তাহলে আপনার কষ্টটা যাবে বিফলে। তাই শর্টকাট রাস্তা না খুঁজে ভালো রাস্তা  খুঁজুন ।

মনে রাখবেন ধৈর্য্যের ফল সবসময় মিষ্টি হয়।
আপনি যেই সময়টা  বিভিন্ন আর্নিং অ্যাপস এর পিছনে দিবেন ,সেই সময়টা অনলাইনে কাজ শিখার উপর দিন তাহলে অনেক কাজে লাগবে।

প্রথমেই বলে রাখি অনলাইন থেকে ইনকাম করা বা টাকা উপার্জন করা একদম সোজা। তার জন্য দরকার বিশেষ জ্ঞান, অভিজ্ঞতা আর ধৈর্য।

কম্পিউটার সম্বন্ধে বেসিক জ্ঞান আছে এবং পাশাপাশি অনলাইনে যে কোন একটি বিষয়ে দক্ষতা আছে এমন যে কেউ অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবে। অনলাইন থেকে ইনকাম এর অনেক পথ বা পন্থা রয়েছে যা একদিনে বলে শেষ হবে না।


শুরুতেই বলে রাখি অনলাইনে ইনকাম করতে গেলে যা যা আপনার থাকতেই হবে ! অর্থাৎ যে গুণগুলো আপনার মধ্যে থাকতে হবে এবং যেগুলো ছাড়া আপনি কখনো অনলাইনে সাকসেস হতে পারবেন না সেগুলো নিচে দেওয়া হল:

1. ধৈর্য: অনলাইনে কাজ করতে গেলে আপনাকে সর্বপ্রথম যেটি থাকতে হবে সেটি হল ধৈর্য ।ধৈর্য ছাড়া পৃথিবীর কোন কাজেই আপনি সফলতা লাভ করতে পারবেন না ।তবে অনলাইন থেকে ইনকাম করতে গেলে আপনাকে আরো বেশি ধৈর্য থাকতে হবে। মোটকথা এখানে ধৈর্য ছাড়া কখনো সফলতা অর্জন করতে পারবেন না।

2. শিক্ষা: ইংরেজিতে মোটামুটি ভালো হতে হবে কিংবা ইংরেজিতে মোটামুটি বেসিক নলেজ থাকতে হবে। কম্পিউটার এবং মোবাইল সম্বন্ধে বেসিক নলেজ থাকতে হবে। পাশাপাশি অনলাইন সম্বন্ধে বিশেষ জ্ঞান বা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা লাভ করতে হবে।বর্তমানে এই প্রযুক্তির যুগে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ঘরে বসে লাভ করা যায়।

3. সাহস : অনলাইনে কাজ করতে গেলে মোটামুটি আপনার সাহসের দরকার আছে। তা না হলে আপনি টিকতে পারবেন না ।যেমন ধৈর্য এবং শিক্ষা লাগবে কেমন সাহস লাগবে। ধৈর্য এবং শিক্ষা ছাড়া আপনি কখনোই সফলতা অর্জন করতে পারবেন না।

তবে অনলাইনে কাজ করার ক্ষেত্রে আপনার যেটি সবার প্রথমে লাগবে তা হল ভালো কাজ জানা।

 প্রথমে আপনাকে অনলাইনে কাজের যেকোনো একটি বিষয়ে খুব ভালো করে জ্ঞান অর্জন করতে হবে এবং তা দিয়ে আপনি অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারবেন।

অনেক কথাই তো হলো চলুন এবার কাজের কথায় আসি।

অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের কাজ রয়েছে তবে বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং হলো বিশ্বের মধ্যে অন্যতম একটি পেশা। ফ্রিল্যান্সিং মানে হল মুক্ত পেশা । অর্থাৎ এখানে নিজের ইচ্ছা অনুযায়ী স্বাধীন মত কাজ করা যায় এবং এটি ঘরে বসে খুব সহজে করা যায়।

বর্তমানে আমাদের দেশে অনেক ফ্রিল্যান্সার রয়েছে যারা প্রতিমাসে 3 থেকে 4 লাখ টাকা অনায়াসে ইনকাম করে। তবে তার জন্য তাদেরকে দিতে হয়েছে অনেক শ্রম ও সময়।

ফ্রিল্যান্সাররা মূলত কন্টাক্ট বেসিস কাজ করে থাকে । ক্রেতা (Buyer) তাদের হায়ার করে কাজ দেয় এবং কাজের উপর ভিত্তি করে টাকা পে করে। আর সেই টাকা ব্যাংকের মাধ্যমে উত্তোলন করা হয়।

চলুন এবার জেনে নেয়া যাক খুব সহজেই কি কি উপায় অনলাইন থেকে আয় করা সম্ভব

1. ফ্রিল্যান্সিং: ফ্রীলান্সিং সম্বন্ধে আমি আগেই বলেছি। উপরের বিষয়গুলো মন দিয়ে পড়লে ফ্রিল্যান্সিং সম্বন্ধে মোটামুটি একটা ধারণা নিতে পারবেন। মূলত বিভিন্ন ধরনের ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম।

ক: ওয়েব ডেভেলপমেন্ট,

খ: ডিজিটাল মার্কেটিংঃ

ডিজিটাল মার্কেটিং এর মধ্যে রয়েছে- ফেসবুক মার্কেটিং  টুইটার মার্কেটিং,  লিঙ্কডইন মার্কেটিং, ইন্সটাগ্রাম মার্কেটিং, ই-মেইল মার্কেটিং, ইয়াহু মার্কেটিং , গুগল মার্কেটিং, কনটেন্ট রাইটিং, ইউটিউব মার্কেটিং ,পিন্টারেস্ট মার্কেটিং, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, সিপিএ মার্কেটিং ইত্যাদি।

এই ডিজিটাল মার্কেটিং এর মধ্যে কেউ কেউ একটি অথবা কেউ কেউ একের অধিক মার্কেটিং এর সাথে জড়িত হয়ে অনেক অনেক বৈদেশিক মুদ্রা আয় করছেন।

বিশেষ করে বাংলাদেশের অনেকে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে ব্লগিং এর সাথে এডসেন্স যুক্ত করে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছেন।

গ. এসইও(SEO) :  এসইও হচ্ছে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন । অর্থাৎ কোন একটি গুগোল সাইটকে বা ওয়েবসাইটকে গুগলের প্রথম পেইজে আনার জন্য যেটি করতে হয় এবং যা ওয়েবসাইটের জন্য  অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আর্টিকেল কে  টপ পজিশনে নেওয়ার জন্য  যেটি করা হয় সেটি হচ্ছে এসইও। এসইও ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি অংশ। এসইও করে প্রতিবছর বাংলাদেশের অনেক তরুণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে।

2. ইউটিউবিংঃ  ইউটিউব হচ্ছে এমন একটি প্লাটফর্ম যেখানে আপনি আপনার দক্ষতা গুলো মানুষের কাছে তুলে ধরে এবং সেই অনুযায়ী ভিডিও নিয়মিত আপলোড করে খুব সহজেই সেটা মনিটাইজেশন করে বৈদেশিক ডলার ইনকাম করতে পারবেন। এবং এটি অত্যন্ত ধৈর্যের প্রয়োজন। ইউটিউব এর ইনকাম টা মূলত গুগল এডসেন্সের মাধ্যমে হয়ে থাকে। এবং এটি ফ্রিল্যান্সিং এর একটি অংশ।

3.  এন্ড্রয়েড এপস ডেভেলপমেন্টঃ  অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস ডেভলপমেন্ট করেও বাংলাদেশের হাজার হাজার তরুণ মাসে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করছে। এর মাধ্যমে নিজের একটি প্লাটফর্ম ইউটিউব এর মত করা যায় এবং ইনকাম করা যায় গুগোল অ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে। এবং এটিও ফ্রিল্যান্সিং এর একটি অংশ অর্থাৎ এটিও মুক্ত পেশা।

4. ব্লগিংঃ  ব্লগিং হচ্ছে লেখালেখি করা অর্থাৎ আপনি যদি লেখালেখি করতে ভালোবাসেন তাহলে ব্লগিং হচ্ছে আপনার জন্য । আপনি একটি ওয়েবসাইট ক্রিয়েট করে সেই ওয়েবসাইটে আপনার পছন্দের নিস অনুযায়ী লেখালেখি করে গুগল এডসেন্স অথবা সাথে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং অথবা স্পন্সর এর মাধ্যমে ব্লগে ইনকাম করতে পারেন। এছাড়া আপনি আপনার পছন্দ অনুযায়ী যেকোনো বিষয়ের উপর লেখালেখি করে ইনকাম করতে পারবেন

5. গ্রাফিক্স ডিজাইনঃ ফ্রিল্যান্সিং এর মধ্যে গ্রাফিক্স ডিজাইনও একটি জনপ্রিয় পেশা। বাংলাদেশের অনেক মানুষ ফ্রিল্যান্সিংয়ের ক্ষেত্রে গ্রাফিক ডিজাইন এর সাথে জড়িত। যা থেকে বর্তমানে বাংলাদেশে হাজার হাজার বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হচ্ছে।


এছাড়াও  অনলাইনে ইনকামের আরও অনেক উপায় রয়েছে। যেমন ফটো সেলিং Photo selling , ভিডিও এডিটিং Video Editing, Web Development,Data Entry, আরো কত কি!!!

এক কথায় বলতে গেলে আপনার পছন্দ অনুযায়ী সকল কাজই অনলাইনে পাওয়া যায় এবং যা থেকে আপনি প্রচুর টাকা আয় করতে পারবেন এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে আমাদের ওয়েবসাইট এর Online Earn Tips পেজটি ভিজিট করুন।

ধন্যবাদ





Post a Comment

0 Comments